Tour Updates

live tour

আগের পোস্টেই জানিয়েছিলাম, খুব শিগগিরই আপনাদের নিয়ে যাবো হুগলির এক মন্দির সফরে। হ্যাঁ ভাই,দিনক্ষণ সব পাকা করে ফেললাম। আগামী ২৭ সেপ্টেম্বর, রবিবার, আমরা যাচ্ছি বেশ কিছু প্রসিদ্ধ মন্দির ভ্রমণে। সকাল সকাল বেরিয়ে, গাড়িতেই জলখাবারের পাট চুকিয়ে, প্রথমেই আমরা পৌছে যাবো শ্রীশ্রী পরমহংসদেবের পীঠস্থান কামারপুকুরে। স্থানমাহাত্ম্য নিয়ে নতুন করে কিছু বলতে যাওয়া বাতুলতা মাত্র। শ্রীরামকৃষ্ণের মূল মন্দির সহ সব কিছু দেখে, একরাশ প্রত্যাশা পূরণের অনুভূতিকে পাথেয় করে এবার আমরা যাবো মায়ের বাড়ির পথে। মহাতীর্থ জয়রামবাটী। ঠিক বলেছেন, যতবার আসি, ততবারই মনে হয়, মনপ্রাণ ভরে গেলো। সব দেখে নেবো হৃদয় দিয়ে। খুব ইচ্ছে ছিলো, দুপুরে মায়ের বাড়ি ভোগ খাবো সবাই মিলে। কিন্তু করোনা আবহে মন্দির কর্তৃপক্ষ তা বন্ধ রেখেছেন। তাই মধ্যাহ্নভোজ সারতে হবে হোটেলেই। তবে তাদের আয়োজনের কোনো ত্রুটি নেই। এরপর আমরা আসবো রাজবলহাটে। দেখে নেবো মা রাজবল্লভীর মন্দির। পঞ্চদশ শতকে রাজা ইন্দ্রনারায়ণ এটি নির্মাণ করেন। মুল মন্দির ভেঙে গেছে বহুকাল আগে,নতুন করে তৈরি হয়েছে ৭০ – ৮০ বছর আগে। মায়ের নামের সুত্রেই জায়গার নাম রাজবলহাট। তবে মায়ের মূল মূর্তিটি অক্ষত, প্রায় ৭ ফুট উচ্চতা বিশিষ্ট। বেশ ঘাড় উঁচু করে দেখতে হয়। এ এক অপূর্ব কালীমূর্তি, ধবধবে সাদা মায়ের গায়ের রঙ,স্থানীয় মানুষ ডাকেন শ্বেতকালী। যা ভূভারতে বিরল। মায়ের মুখে এক অদ্ভুত প্রশান্তি, যা আপনাকে কাছে টানবে ভীষণভাবে। মনে পড়ে, ছোটোবেলায় অনেকক্ষণ বাদে মা’কে দেখলে বুকের ভেতর একটা শিরশির করে আনন্দের স্রোত বয়ে যেতো, একবার মাকে ছুয়ে দেখতে ইচ্ছে করতো, বিশ্বাস করুন, সেই একই অনুভূতি হবে মা’য়ের মুখটা দেখলেই। মনে হবে এ-তো আমদের সেই ছোটোবেলার মা। বড়ো আপন,বড়ো কাছের বলে মনে হবে। এবার, আবার আসার অঙ্গীকার করে, মায়ের কাছ থেকে আজ বিদায় নিতেই হবে। এবার একটু এগিয়েই আমরা দেখে নেবো ভারত সেবাশ্রম সংঘের প্রনবানন্দ মন্দির। সেখান থেকে বেরিয়ে আরও বেশ কিছুটা এগিয়ে দেখে নেবো আঁটপুর রামকৃষ্ণ মিশন। স্বামীজি অনেকদিন এখানে ছিলেন। সব দেখে নেবো ঘুরে ঘুরে। পথেই পড়বে আটপুরের কিছু প্রাচীন মন্দির, অদ্ভুত টেরাকোটার কাজ মন্দিরের। দুটো মিনিট দাড়ালে মন্দ কী? এবার গজার মোড় হয়ে ডান দিকে এগিয়ে শিয়াখোলা পৌছে, বা দিকের রাস্তা ধরে সোজা বনমালীপুর। দেখে নেবো সুবিশাল ব্রহ্মদত্ত ধাম। নির্মাণ শৈলী দেখার মতো। তবে মন্দিরের কাজ এখনো চলছে। একই দেহে ব্রহ্মা – বিষ্ণু -মহেশ্বর। চোখ সার্থক হয়ে যাবে। এইরে বেলা যে পড়ে এলো। এবার ফিরতে হবে সেই মন খারাপের রাজ্যে। তাহলে আমরা তৈরি। করোনার চোখ রাঙানিকে উপেক্ষা করে চলুন তো একটু মনটাকে ভরিয়ে নিয়ে আসি,বড্ড খালি খালি লাগছে যে। তাড়াতাড়ি করুন। সিদ্ধান্ত আপনার, দায়িত্ব আমাদের। কেবল একটা ফোন। ব্যাস। আর হ্যাঁ, সেদিন আমাদের বাহন এক ঝা চকচকে এসি উইঙ্গার। আর সমস্ত কিছু নিয়ে জনপ্রতি খরচ ১৫০০ টাকা। আরও কিছু কথা হবে পরের পোস্টে। একটু তাড়াতাড়ি ভাই,একটা ফোন করুন এই নম্বরে —9051159324/7980297340/7044875223/8902481053

Related Stories

Discover

DEKHO BANGLA,DEULTI

  Deulti-An Off Kolkata Relaxing Destination With the magnificent Rup Narayan River close by, Deulti is...

DEKHO BANGLA,JHARGRAM

Weekend Escape To Jhargram Canonized with some of the most fetching beauties – Jhargram is...

DEKHO BANGLA,BUNGKULUNG

  Bungkulung, An Unexplored Paradise Near Mirik Bungkulung is an offbeat tourist destination in North Bengal....

Tour Updates

আগের পোস্টেই জানিয়েছিলাম, খুব শিগগিরই আপনাদের নিয়ে যাবো হুগলির এক মন্দির সফরে। হ্যাঁ ভাই,দিনক্ষণ...

DEKHO BANGLA,DAWAIPANI

An enjoyable weekend trip in Dawaipani Dawaipani  On the way to the popular tourist spot Darjeeling,...

Popular Categories

Comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here