DEKHO BANGLA,KUMAI ||

অনন্য ডুয়ার্স

CHAPRAMARI scaled
WhatsApp Image    at
WhatsApp Image    at
kumai
WhatsApp Image    at
WhatsApp Image    at
BINDU scaled
CHAPRAMARI scaled WhatsApp Image    at WhatsApp Image    at kumai WhatsApp Image    at WhatsApp Image    at BINDU scaled
লকডাউন এখন আনলকের পথে। কোভিড-১৯ ভীতি কাটিয়ে, উইকএন্ড এলেই  মন উরু উরু? হাতে অল্প ছুটি? সাধ ও সাধ্যের মধ্যে বেড়ানোর জন্য অল্পচেনা গন্তব্য খুঁজছেন? একে ওকে ফোন অথবা নেট ঘেঁটে ঘ? তাই ঘুরে ফিরে সেই দীপুদা? মানে, দীঘা-পুরী-দার্জিলিং? তাহলে যাবেন কোথায়? কে দেবে তার সন্ধান?
সন্ধান দেবে দেখো বাংলা, বাংলার মনের আয়না
সোনার বাংলার আনাচে-কানাচে লুকিয়ে থাকা ঐতিহ্যের সন্ধান দেবে,, দেখো বাংলা। কলকাতা থেকে গাড়িতে দেখে নেব, চেনা বাংলার অল্পচেনা রূপ।
৩ দিন ৪ রাতে অনন্য ডুয়ার্স
 ১ম দিন :- কলকাতা থেকে ট্রেনে অথবা গাড়িতে চলে আসতে হবে,নিউমাল জংশন। সেখান থেকে গাড়িতে চলে আসব, অনন্য ডুয়ার্সের আরও এক রূপনগরে।দূরের পাহাড়, তার নিচে ছবি আঁকা গ্রাম, সবুজ ভ্যালি আর কুমাই নদীর বহতার মুগ্ধতা। সেই মুগ্ধতাকে সঙ্গী করে একটা চড়াই পেরিয়ে এসে থমকে দাঁড়াবে দিগন্ত বিস্তৃত দুটি পাতা আর একটি কুঁড়ির দেশে। আদিকন্ত আকাশের সীমানা জুড়ে হিমেল হিমালয়ের বিস্তার। তারই বুকে মখমলি সবুজ কার্পেট বিছানো চা বাগান। তামাম চা প্রেমীদের কাছে এই অল্পচেনা নিস্বর্গের নাম – কুমাই। যেদিকে চোখ যায় সেদিকেই মনমাতানো সবুজের গালিচা বিছানো। লাঞ্চ সেরে কুমারী কুমাই এর আশেপাশে ঘুরে দেখে নেব। এখানকার অসাধারণ সূর্যাস্ত অনেকদিন মনে থেকে যাবে। সন্ধ্যায় স্নাক্স আর রাতে ডিনার।
 ২য় দিন :- কুমাই এর অসাধারণ সূর্যোদয় দেখে ব্রেকফাস্ট সেরে চলে আসব, জলঢাকা পাড়ের ঝালং। কালিম্পং সাব ডিভিশানের এক ছবি আঁকা পাহাড়ী উপত্যকা। লাঞ্চ সেরে দেখে নেব ঝালং কে। ঝালং এ রয়েছে সুন্দর গোম্ফা। সন্ধ্যেয় ভেসে আসা গুরুগম্ভীর প্রার্থনা সঙ্গীত আর জলঢাকার অবিরাম বয়ে চলা শব্দ শুনতে শুনতে এক স্বপ্নজগতে পাড়ি দেয় মন। এখানকার মানুষজনদের গ্রাম্য আতিথেয়তা মুগ্ধ করবে। আজ এখানে রাত্রিবাস। সন্ধ্যায় স্ন্যাক্স আর রাতে ডিনার।
 ৩য় দিন :- ব্রেকফাস্ট সেরে ঝালং কে বিদায় জানিয়ে চলে আসব আরও উপরে। ঝালং থেকে ১২ কিমি দূরে চলে আসুন ভারতের শেষ বিন্দুতে। আসলে ভারত-ভুটান সীমান্তের শেষ গ্রামের নাম বিন্দু। ভুটান পাহাড় থেকে বেয়ে আসা জলঢাকার নদীবাঁধ আর জলবিদ্যুৎ প্রকল্প। জলঢাকা নদী পাড়ের হোটেলে রাত্রিবাস। লাঞ্চ সেরে বিন্দু কে দেখে নেব। সন্ধ্যায় স্ন্যাক্স আর রাতে ডিনার।
 ৪র্থ দিন :- ব্রেকফাস্ট সেরে বেড়িয়ে পড়ব, বিন্দু থেকে আরও উপরে অসাধারণ প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ভরপুর বেশকিছু অনাঘ্রাত গ্রাম ঘুরে দেখে নেব। তোদে, তাংতা। এখান থেকে নীচের জলঢাকাকে রুপোলী ফিতের মতো দেখায়। বিন্দু ফিরে লাঞ্চ সেরে এবার নিউমাল অথবা এন.জে.পি হয়ে ফিরে আসব কলকাতায়।
গুরুত্বপূর্ণ তথ্য :-
 ঝালং :- চালসা থেকে খুনিয়া মোড়। দুপাশে আসবুজ ঘন অরণ্যর বুকচেরা রাস্তা ধরে খানিক এগোলেই বাঁহাতে চাপড়ামারির গহিন অরণ্যর দিকে ঢুকে গিয়েছে। যতো এগোবেন, অরণ্যর গভীরতা বাড়তে থাকে।সিপচু মোড় থেকে ডানদিকে অরণ্যঘেরা গ্রাম-বস্তি পেরিয়ে ইপিকাক, এলাচের গন্ধমাখা গৈরিবাস পেরিয়ে চলে আসুন, কালিম্পং সাব ডিভিশানের এক ছবিআঁকা পাহাড়ী উপত্যকা, ঝালং। চেকপোস্ট পেরিয়েই দেখা মিলবে পাহাড় ঘেঁষা উপত্যকার খাঁজে খাঁজে বসানো ঘরবাড়ি।শান্ত পাহাড়ি গ্রামে দেখা মিলবে অশান্ত দুই ঝোরার। সিঁটি টাঁড়ের পাশ দিয়ে বয়ে আসা রঙ্গো খোলা আর ঝালং খোলা। এই দুই নদী এসে মিশেছে,জলঢাকায়। নদীর কোল ঘেঁষা সুন্দর বনবাংলো।জলঢাকা নদী পাড়ে জলবিদ্যুৎ প্রকল্প। ওপাড়ে খাঁড়া পাহাড় সীমানা এঁকেছে। সেই পাহাড়ের মাথায় আমাদের প্রতিবেশী রাষ্ট্র, ভুটান। ঝালং এর রয়েছে সুন্দর গোম্ফা। সন্ধ্যেয় ভেসে আসা গুরুগম্ভীর প্রার্থনা সঙ্গীত আর জলঢাকার অবিরাম বয়ে চলা শব্দ শুনতে শুনতে এক স্বপ্নজগতে পাড়ি দেয় মন| এখানকার মানুষজনদের গ্রাম্য আতিথেয়তা মুগ্ধ করবে।
 বিন্দু :- ঝালং থেকে আরও উপরে জলঢাকার পার ধরে আঁকাবাকা পথ পেরিয়ে চলে আসুন প্যারেন। দেখে নিন আরও এক ছবি আঁকা শান্ত পাহাড় গ্রাম। এরপর প্যারেনকে পেছনে ফেলে ঝালং থেকে ১২ কিমি দূরে চলে আসুন ভারতের শেষ বিন্দুতে।আসলে ভারত-ভুটান সীমান্তের শেষ গ্রামের নাম বিন্দু। ভুটান পাহাড় থেকে বেয়ে আসা জলঢাকানদী বাঁধ আর জলবিদ্যুৎ প্রকল্প। অপরূপ জলঢাকার নদীর গা ঘেঁষা পাহাড়ের কোলে ভুটানিদের আসা-যাওয়া, আর এপারের প্রতিটি বাড়ির বারান্দার টবে ফুটে থাকা ফায়ার বল, পিটুনিয়ার মুগ্ধতা। নদীর কোল ঘেঁষা বেশ কয়েকটি হোটেল। এখান থেকে জলঢাকাকে দেখতে দেখতে কোথা দিয়ে সময় পেরিয়ে যাবে তা টের পাওয়া যাবে না। প্রতি বৃহস্পতিবার এখানে হাট বসে। ভুটান পাহাড় বেয়ে প্রচুর ভুটিয়ারা কেনাকাটি করতে আসেন ভারতে। পাইন, ওক, ফার গাছে ঢাকা জলঢাকা পাড়ের ভারতের শেষ বিন্দু মন মাতিয়ে দেয়।

3 DAYS 4 NIGHTS DOOARS

DAY 1 :- Reach New Mal Jn. from Kolkata by train. We will take a car and head towards a new destination. Nested in the lap of Dooars, with the green Himalayan range at the backdrop, picturesque village and the valley adding to the landscape with the Kumai river flowing in its own charm. With the Himalayas ranging across the horizon and the tea gardens resembling a green carpet spread throughout, an off beat place favoured by the tea-lovers – Kumai. After lunch we will visit the near abouts of Kumai and enjoy the sunset with snacks. Dinner and overnight stay.

DAY 2 :- Enjoy the serene view of sunrise at Kumai and aftre breakfast, visit Jhalong, a small valley seated on the banks of Jaldhaka river. After lunch we will visit the Gomfa here. In the evening, enjoy the ambience with the sound of the ripples of Jaldhaka river and the tunes of prayers from the Gomfa. Dinner and overnight stay.

DAY 3 :- After breakfast we will bid goodbye to Jhalong and reach Bindu, a small village situated 12kms away on the Indo-Bhutan Border. We can see the dam constructed over Jaldhaka river entering India and the hydel power project. After lunch we will visit the near abouts at Bindu. Nightstay at a hotel on the bank of Jaldhaka.

DAY 4 :- Aftre breakfast we will ascend from Bindu and visit some of the picturesque offbeat villages seated on the lap of nature – Tode, Tangta. The sight of Jaldhaka river flowing below resembles a silver ribbon. Return to Bindu and after lunch drop at New Mal Jn./New Jalpaiguri

 

Jhalong> Reach Khunia Mor from Chalsa by taking a drive through the dense forests of Chapramari. Take a right from Sipchu Mor and travel through the small villages and spice gardens to reach .A picturesque valley nested in the hills, Jhalong also houses two brooks – Rango Khola and Jhalong Khola, which flows further to converge and form Jaldhaka river. The river then flows with forest bunglow on one bank and the Himalayas forming the border with Bhutan on the other. Jhalong has an old Gomfa where prayers are performed every evening. The sound of the ripples of Jaldhaka river and the tunes of prayers from the Gomfa makes the ambience memorable every evening.

BINDU> Ascending along the banks of Jaldhaka river, reach Bindu, a small village situated 12kms away on the Indo-Bhutan Border. A dam constructed over Jaldhaka river entering India and the hydel power project. The village is often visited by the Bhutanese and the sight of Fireball and Pitunia flowers kept at the balconies of every house make the village unique itself. Bhutanese descend down the hills at local market every Thrusday for buying and selling local artifacts. Surrounded by pine , oak , fir forests , Bindu embraces both local and Bhutanese people and offers a vibrant sight to the tourists.

How to reach>Nearest railhead is New Mal Jn. which is accessible by train from Sealdah. Jhalong is located 45kms by car. Bindu is 12km from Jhalong. Car fare Rs 3000-3500, rates may vary according to peak and lean seasons.

Related Stories

Discover

Tour Updates

আগের পোস্টেই জানিয়েছিলাম, খুব শিগগিরই আপনাদের নিয়ে যাবো হুগলির এক মন্দির সফরে। হ্যাঁ ভাই,দিনক্ষণ...

DEKHO BANGLA,DAWAIPANI

CLICK HERE READ THIS BLOG IN ENGLISH An enjoyable weekend trip in Dawaipani লকডাউন এখন আনলকের...

DEKHO BANGLA,MOUCHUKI ||

CLICK HERE READ THIS BLOG IN ENGLISH লগডাউন এখন আনলকের পথে। কোভিড-১৯ ভীতি কাটিয়ে, উইকএন্ড...

DEKHO BANGLA,SITTONG

CLICK HERE READ THIS BLOG IN ENGLISH An enjoyable weekend trip in Sittong   ৩ রাত ৪...

DEKHO BANGLA,TAKDAH-RAMPURIA ||

Click Here To Read This Article In English লগডাউন এখন আনলকের পথে। কোভিড-১৯ ভীতি কাটিয়ে,...

Popular Categories

Comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here