DEKHO BANGLA,BIRBHUMER SAKTIPITH

দেখো বাংলা, বীরভূমের শক্তিপীঠ

Maa Tara Temple
fb b
SONAJHURI HATSANTANU CHAKRABORTY Max Width  Max Height
Maa Tara Temple fb b SONAJHURI HATSANTANU CHAKRABORTY Max Width  Max Height

An enjoyable weekend trip in Saktipith of Birbhum

লকডাউন থেকে আনলকের পথে। আবার স্বাভাবিক ছন্দে ফিরতে শুরু করেছে জীবন। হাতে অল্প ছুটি? সাধ ও সাধ্যের মধ্যে বেড়ানোর জন্য অল্পচেনা গন্তব্য খুঁজছেন? একে ওকে ফোন অথবা নেট ঘেঁটে ঘ? কে দেবে তার সন্ধান?

সন্ধান দেবে দেখো বাংলা, বাংলার মনের আয়না

সোনার বাংলার আনাচে-কানাচে লুকিয়ে থাকা ঐতিহ্যের সন্ধান দেবে,, দেখো বাংলা। কলকাতা থেকে গাড়িতে দেখে নেব, চেনা বাংলার অল্পচেনা রূপ।

বীরভূম।দক্ষিণবঙ্গের এক বৈচিএ্যময় জেলা। লালমাটির গ্রাম, আঁকাবাঁকা অজয়ের পাড় জুড়ে কাশবনের মুগ্ধতা। বীরভূম হল তন্ত্রসাধনার পীঠস্থান। সাধক বামাক্ষ্যাপার জন্মস্থান, রয়েছে বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের অনবদ্য শান্তিনিকেতন, মহাপীঠ তারাপীঠ, কবি জয়দেবের কেন্দুলি, বিভূতিভূষণের স্মৃতিবিজরিত ধাত্রিগ্রাম, ইছাই ঘোষের দেউল আবার বিস্ময়কর বহুপ্রাচীন ফসিল পার্ক নিয়েই আরও অল্পচেনা ঠিকানা দেখে নেব।

১ম দিন :- কলকাতা থেকে ভোরে গাড়ীতে বেড়িয়ে পড়ুন। পথে ব্রেকফাস্ট। ঘণ্টা ৫। আজ তারাপীঠে। মহাপীঠ তারাপীঠ একটি শক্তি পীঠ। শক্তিপীঠ অর্থাৎ একান্নটি সতী পীঠের অন্যতম হলো এই তারাপীঠ। দক্ষ যজ্ঞে সতী দেহত্যাগ করলে মহাদেব শিব তাঁর পবিত্র দেহ কাঁধে নিয়ে সারা পৃথিবী ঘুরতে থাকেন। শিবের প্রলয় নাচনে পৃথিবীর অস্তিত্ব বিলুপ্তের পথে যাবার দশা হয়। এমন সময় শ্রী বিষ্ণু তাঁর সুদর্শন চক্রের সাহায্যে সতীর দেহ মোট একান্ন খণ্ডে বিভক্ত করেন ।

কথিত আছে, দেবী সতীর তৃতীয় নয়ন অর্থাৎ নয়ন তারা এই গ্রামে পতিত হয়। পরে যা পাথরে পরিণত হয়ে গিয়েছিল। একদিন ঋষি বশিষ্ঠ মায়ের এই রূপটি প্রথম দেখতে পেয়েছিলেন এবং সতীকে মা তারা রূপে পূজা করেছিলেন। পুজো দিয়ে রাত্রিবাস তারাপীঠে।

২য় দিন :- তারাপীঠ থেকে ব্রেকফাস্ট সেরে চলে আসবো নলহাটেশ্বরি। দুরত্ব ৫৫ কিমি। ৫১ পীঠের অন্যতম সতী পীঠ বীরভুমের নলহাটেশ্বরী দেখে নেব। দর্শন সেরে চলে আসব কঙ্কালিতলা। দূরত্ব প্রায় ৪৫ কিমি। আরও ১২ কিমি দূরের ফুল্লরা দেখে প্রান্তিকে রাত্রিবাস।

৩য় দিন :- ব্রেকফাস্ট সেরে কবিগুরুর শান্তিনিকেতনকে দেখে ফিরে আসব, কলকাতায়। পথে লাঞ্চ।

BOOK YOUR TRIP TO BIRBHUMER SAKTIPITH

 গুরুত্বপূর্ণ তথ্য :-

 পবিত্র সতীপীঠ নলহাটেশ্বরী:-  মিথ বলছে, এখানে সতীর গলার নলী পরেছিল। তাই নলহাটী।আজ থেকে কয়েক শো বছর আগে পাহাড় ও ঘন জঙ্গলে ঘেরা ছিল এই নলহাটী। পাহাড়ের  মাঝে একটি গাছের নীচে মায়ের দেহের এই খন্ড অংশ পরে। পাশের গ্রামের বাসিন্দা রাম চন্দ্র শর্মা মায়ের স্বপ্নাদেশ পেয়ে মাকে উদ্ধার করে ওই স্থানেই মাকে কালী রুপে পুজো শুরু করেন। এই সতী পীঠে মায়ের কালী রুপে দেখা গেলেও আসল পুজো হয় দুর্গা পুজোর সময়। কালক্রমে সেই পাহাড় জঙ্গল আজ শহরে পরিণত হয়েছে। গড়ে উঠেছে মায়ের বিশাল মন্দির। দুর্গা পুজোর সময় মায়ের বাত্‍সরিক পুজো হলেও কালী পুজোয় মায়ের বিশেষ পুজো হয়। এখানে আজও বলী প্রথা রয়েছে। মায়ের সারা বছর নিত্য সেবা দেওয়া হয়। এখানে কালী পুজোর দিন খিচুড়ি ভোগ দেওয়া হয়। মন্দিরটি সনাতনী চারচালা ধাঁচে তৈরি। মন্দিরের গর্ভগৃহে অবস্থিত বিগ্রহটির উচ্চতা চার ফুট। দেবীর কেবল মুখমণ্ডলটিই প্রদর্শিত হয়। দেবী কালী রূপেই পূজিতা হন নলাটেশ্বরী। কিন্তু দেবীর চিত্ত এখানে বড়ই স্নিগ্ধ ও শান্ত। প্রতিবছর দীপান্বিতা অমাবস্যা তিথিতে এখানে প্রত্যেক বছর অসংখ্য ভক্তের ঢল নামে।

 কঙ্কালিতলা:- তন্ত্র চূড়ামণি মতে এটি হচ্ছে সতীর 28 তম পীঠতন্ত্রের যতগুলি গুচ্ছ পীঠ রয়েছে তার মধ্যে এটি একটি গুচ্ছ পীঠ কথিত আছে এখানে যে কুন্ডটি আছে তার জল কখনো শুকায় না অনেকের মতে কাশির মণিকর্ণিকা ঘাটের সঙ্গে এর নাকি যোগ আছে। কোপাই নদীর তীরে বোলপুর লাভপুর রোডের উপর এই কঙ্কালীতলা| আগে এই স্থান কাঞ্চি দেশ নামে পরিচিত ছিল |পীঠ নির্ণয় তন্ত্রের মতে, এখানে দেবীর কঙ্কাল পড়ে ছিল তা থেকেই এই জায়গার নাম কঙ্কালীতলা। ভারতচন্দ্রের অন্নদামঙ্গল এ বলা হয়েছে এই স্থানে সতীর কঙ্কাল বা কটি দেশ পতিত হয়েছিল| এখানে দেবী হলেন দেবগর্ভা। কোপাই নদীর তীরে কুন্ডের জলে দেবীর অধিষ্ঠান। কুন্ডের পাশেই দেবীর মন্দির এখানে দেবী কালী রূপে পূজিত হন। ।

 লাভপুর-ফুল্লরা-ধাত্রিগ্রাম:- ফুল্লরা পীঠ। দেবীর অপর নাম অট্টহাস। এই পীঠ জনবসতি থেকে দূরে অত্যন্ত মনোরম স্থানে অবস্থিত। লাল কাঁকুরে মাটির টিলার ওপর পীঠভূমি। নীচে কোপাই নদী। পাশেই রয়েছে মহাশ্মশান। রয়েছে বিশাল দীঘি। এই দীঘির জল কখনই শুকোয় না। অকালবোধনের সময় হনুমান নাকি এই দীঘি থেকে ১০৮টি নীলপদ্ম সংগ্রহ করেছিলেন শ্রীরামচন্দ্রের জন্য। শিব মন্দিরের গায়ে ১৩০২ বঙ্গাব্দের একটি ফলক রয়েছে। ওই ফলকটিই প্রাচীনতম বলে মনে হয়। মন্দিরের অদূরে বরেণ্য কথাসাহিত্যিক তারাশঙ্কর বন্দ্যোপাধ্যায়ের জন্মভিটা। লাভপুর পঞ্চায়েত সমিতি ধাত্রীদেবতা নামে বসতবাড়িতে সংগ্রহশালা গড়ে তুলেছে। তারাশঙ্করের অমূল্যসাহিত্যকীর্তি ‘হাঁসুলী বাঁকের উপকথা”র পটভূমিতে চলে আসব, বক্রেশ্বর ও শাল নদের মিলিত কুলানদীর বাঁকে। রাতে শান্তিনিকেতনে অথবা প্রান্তিকে রাত্রিবাস।

An enjoyable weekend trip in Saktipith of Birbhum

Months in Lockdown to beat the Pandemic. Now is the time to break the monotony of captivity to which you have resigned. This is the time  to renew the weekend  in vast expense of  a refreshed nature within your means.

Let you explore in your backyard with “DEKHO BANGLA”, the mirror of incredible Bengal . DEKHO BANGLA is a unit of Travelites Tours and Travels. we will take you to the hotspots where the bouquet of  tradition and lost stories will take us back to centuries.

Birbhum is one the vibrant districts of Bengal. Villages with small paths over the red soil, Ajay river making its way through the district with beautiful landscapes. Birbhum which houses 5 Sati Peeths is also known for Tantra Sadhanas. Birthplace of legendary monk Bama Khyapa, Kaviguru Rabindranath Tagore’s Shantiniketan , famous Tarapith shrine, poet Jayadev’s village Kenduli, Dhatrigram and ancient fossil park are the places to visit.

Day 1 :- Starting from Kolkata early morning we will reach Tarapith (212 kms, 5hrs). Tarapith is a Hindu temple town in Rampurhat subdivision of Birbhum district of West Bengal, known for its Tantric temple and its adjoining cremation (Maha Shashan) grounds where tantrasadhana (tantric rituals) are performed. The Tantric Hindu temple is dedicated to the goddess Tara, a fearsome Tantric aspect of the Devi, and is the chief temples of Shaktism. Tarapith is also famous for Sadhak Bamakhepa, known as the avadhuta or “mad saint”, who worshipped in the temple and resided in the cremation grounds as a mendicant and practised and perfected yoga and the tantric arts under the tutelage of another famous saint, Kailashpathi Baba. Bamakhepa dedicated his entire life to the worship of Tara Maa. His ashram is also located in bank of Dwaraka river and close to the Tara temple. Legend says, Sati, the consort of Shiva, felt insulted when her father Daksha did not invite Shiva to the great yajña “fire sacrifice” he organized. Unable to bear this humiliation, Sati gave up her life by jumping into the yajña fire. Infuriated by this tragic turn of events, Shiva went wild. Then, Vishnu, in order to pacify Shiva, decimated the body of Sati with his chakra. Sati’s body part fell all over the Indian subcontinent. The places where the body parts fell have become centres of worship of the Goddess in different manifestations.

Legend says that Sati’s eye-ball (Tara/Nayantara) fell here which turned into stone later which is worshipped here. Saint Vashistha had seen this form and worshipped the goddess Sati in the form of Tara. After offering Puja at the famous Tarapith Temple, dinner and overnight stay at hotel.

Day 2 :-  After breakfast we will start for another Sati Peeth – Nalhateshwari situated at Nalhati 55kms away. Then on the list we have Kankali Tala (45km) and situated further 12 km Fullara. Night stay at Prantik.

Day 3 :- After breakfast we will visit Shantiniketan and return towards Kolkata. Lunch on the way.

For any query you can contact with us

Important Information:-

Nalhateswari Temple :- Legend says, the throat (or Nali) of Sati fell here from which the place Nalhati and the temple derives it s name. Hundreds of years ago the place was covered with hillocks and dense forests, where the throat of Sati fell under a tree. A resident of nearby village Ramchandra Sharma started worshipping the deity in the form of Goddess Kali. Though the deity here is worshipped as Kali, the main Puja is performed during the Durga Puja.

At present the forests are unexistent and Nalhati is a town where a big temple has been constructed where huge celebrations and worshipping is offered during Durga Puja and Kali Puja every year.

The temple is made of “Char-chaala” structure, The idol is 4 feet tall and displays only the calm and composed face of the . Huge numbers of devotees gather here during the Dipanwita Amavasya every year

Kankalitala :- Located on the banks of Kopai river, Kankalitala was once knowns as Kanchi Desh. According to tantra churamani it is one of the Peethas of Guchchhapeeths. It is one of the Shakti Peethas where the waist (or kankal in Bengali) of sati fell. There are several temples in the town. This is also a popular Hindu pilgrimage site of West Bengal. There is another temple in Kankalitala, Kanchishwar Temple in Kankalitala Temple complex. Legend says that te pond located here never dries up and is linked with the Manikaranika Ghat at Kashi. The Shakti of the temple is addressed as “Devgarbha” and the Bhairava as “Ruru”.

Labhpur – Fullara – Dhatrigram :- Fullara Peeth. The Goddess here is known as Attahas. The temple is located far away from the congestion of township at a pleasant place, at the top of a cliff, Kopai river flowing below. Beside the temple is crematorium and a large lake. Legend says that Shri Hanuman picked up 108 lotuses for Shree Ramchandra from this lake during the Akalbodhan Puja.

Situated near the temple is the birthplace of famous writer Tara Shankar Bandhopadhyay. Labhpur Panchayat Samity has constructed a museum named Dhatridebata at his place of residence. We will visit the banks of Kulanadi , which is formed by the confluence of Bakreshwar and Shaal rivers. The place has been mentioned by writer Tarashankar Bandhopadhyay in his creation “Hanshuli Banker Upokatha”

 

BOOK YOUR TRIP TO BIRBHUMER SAKTIPITH

 

You can see next article of “DEKHO BANGLA” to click the below link

DEKHO BANGLA, SUKHARIA

Related Stories

Discover

Tour Updates

আগের পোস্টেই জানিয়েছিলাম, খুব শিগগিরই আপনাদের নিয়ে যাবো হুগলির এক মন্দির সফরে। হ্যাঁ ভাই,দিনক্ষণ...

DEKHO BANGLA,DAWAIPANI

CLICK HERE READ THIS BLOG IN ENGLISH An enjoyable weekend trip in Dawaipani লকডাউন এখন আনলকের...

DEKHO BANGLA,MOUCHUKI ||

CLICK HERE READ THIS BLOG IN ENGLISH লগডাউন এখন আনলকের পথে। কোভিড-১৯ ভীতি কাটিয়ে, উইকএন্ড...

DEKHO BANGLA,SITTONG

CLICK HERE READ THIS BLOG IN ENGLISH An enjoyable weekend trip in Sittong   ৩ রাত ৪...

DEKHO BANGLA,TAKDAH-RAMPURIA ||

Click Here To Read This Article In English লগডাউন এখন আনলকের পথে। কোভিড-১৯ ভীতি কাটিয়ে,...

Popular Categories

Comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here